nonibaladebi

বাংলার প্রথম রাজবন্দী ননীবালা দেবীর দুর্দশাময় জীবন দর্শন

ইতিহাস হল মানব জীবনের অতীত,বর্তমান ও ভবিষ্যৎ। এক কথায় বলতে গেলে ইতিহাস হল মানব সভ্যতার কাছে এক জীবন্ত দলিল। সময় দিনপঞ্জি, জীবন দর্শন ঘটনা প্রবাহমান অতীত গুলো ঐতিহাসিকরা ইতিহাসের পাতায় লিপিবদ্ধ করে গেছে আমাদের সুবিধার্থে। সত্যের আলোকে ইতিহাসের পাতায় লিপিবদ্ধ ঘটনাগুলোকে পড়ে আমরা সমৃদ্ধ হই। ইতিহাস থেকে আমরা দেশ-বিদেশের জানা আরও পড়ুন…

amar_arunesh

আমার অরুণেশ

সঙ্গম শেষে একলা হয় চাদরজেগে থাকে জলজ অভিমানএ জাতীয় প্রত্যাশা তীব্র হলে ছুঁড়ে ফেলি উদাসী ঢেঁকুরনতজানু হয়ে বসে পড়ি দেহজ ভোরের কাছেকিছু যাপন কাঙ্ক্ষিত নয় জেনেভ্রমণ করে চলি লুকোনো সিন্দুকে । কক্ষপথ জুড়ে নগ্ন গণিকার দল কুশল সংবাদ চেয়ে বসে –প্রত্যুত্তরে আমি নিশ্চুপ থাকি শহুরে রিক্সাওয়ালার মতো , হাতড়ে বেড়াই আরও পড়ুন…

e_lekhar_nam_nei

এ লেখার নাম নেই

কিছু বছর আগে কোচবিহারে কবি পাপড়ি গুহনিয়োগীর বাড়িতে ওঁদের পত্রিকার নাম নিয়ে কথা হচ্ছিল। তখন কথা প্রসঙ্গে বলছিলাম অরুণেশের পত্রিকার নামের কথা। তাঁর সম্পাদিত পত্রিকার নাম ছিল ‘জিরাফ’। সংকেত, ইঙ্গিত ও গূঢ়তাবাহী একটি নাম। এমন একটি প্রাণী জিরাফ, যে বোবা। নখ নেই, ধার নেই, আক্রমণ নেই, গতি নেই, শান্ত। কিন্তু আরও পড়ুন…

arunesh_arunesh

অরুণেশ অরুণেশ

১.অরুণেশকে আমি আমার ১৬ বছর বয়স থেকে চিনি। অরুণেশকে পাঠ করা শুরু করি। তার “শ ব ও সন্ন্যাসী”, “গুহা মানুষের গান” আমাকে প্রবল বিস্মিত করলো। এমন কবিতা এমন কড়া চাবুকের মুখোমুখি তো এর আগে হইনি। আমার পাঠ ভুবনে তীব্র এক প্রদাহ শুরু হলো। যদিও পরবর্তীতে কবিতা নয়,অরুণেশ-এর গদ্য আর প্রবন্ধের আরও পড়ুন…

ektukro rod

এক টুকরো ‘রোদ’– অরুণেশ ঘোষ

২০০২-০৩ঃ সালটা বেশ মাতাল বা বলা যেতে পারে উত্তাল। চারদিকে তরুণরাও উদ্দাম। বিশ্বাস হয় না।বালুরঘাটে সাধনামোড়ে ভাষাদিবস-এর অনুষ্ঠানে প্রায়  একশ তরুণ-তরুণী কবিতা পড়ছে। রীতিমতো চমকে দেওয়ার মতো ব্যাপার। সসমসাময়িক রাজনৈতিক দলও বোধহয় ঘাবড়ে গেছিল। বুদ্ধিজীবী মহলে কানাঘুষো শুরু হলও; তাহলে কী বালুরঘাট এখন কবিতার শহর। নাটকের কী হবে?           বালুরঘাট আরও পড়ুন…

akhhep o opekhha

আক্ষেপ ও অপেক্ষার শ্বাস, এবং অরুণেশ

“জয়পুর থেকে আমার চিঠি যায়তুমি ডাকপিয়নের কাছ থেকে হাত বাড়িয়ে নিয়েছ সেই চিঠিআমি ভাবতে পারি, তোমার চোখ ঝাপসা হয়ে আসেতুমি পড়তে পারো না, ছানি ফেটে বেরিয়ে আসতে চায় তোমার চোখতোমার যুবা বয়সের সেই চকচকে চোখের মণি মাআমাদের কোনো দুঃখ নেই আর, কোনো শোকদুজনেই মরে পড়ে থাকব, দুজনেইদুই দেশের দু-রকম রাস্তার আরও পড়ুন…

dhormomongol

রাঢ় বাংলার কাব্যঃ রূপরামের ধর্মমঙ্গল-এ বাস্তব চরিত্র

সপ্তদশ-অষ্টাদশ শতকে রাঢ় বাংলার লোককথা ও লোকশ্রুতি থেকে জন্ম হয়েছে ধর্মমঙ্গল কাব্যের। বিভিন্ন অলৌকিক ঘটনা এবং অবিশ্বাস্য কর্মকান্ড বর্ণিত হলেও কবির কল্পনা লোকজীবন ও লোকচরিত্রকে অতিক্রম করে যায়নি। কাব্যের চরিত্ররা যে রাঢ়বাংলার জনসমাজের বাস্তব চরিত্রের আদলে চিত্রিত সে বিষয়ে কোনো সংশয় থাকে না। বৃহত্তর রাঢ় জনগোষ্ঠীর আশা-কামনা-বাসনা-ধর্মবিশ্বাসকে অস্বীকার করে গড়ে ওঠেনি আরও পড়ুন…

kobi-subhash-mukhopadhbyay

কবি সুভাষ মুখোপাধ্যায় : এক অচলায়তন ভাঙা কবি

১. জীবনানন্দ-উত্তর বাংলা কবিতার একটি মহীরূহ সুভাষ মুখোপাধ্যায়। অতি-ব্যবহারে ধ্বস্ত কাব্যভাষা বা ডিকশান থেকে বাংলা কবিতাকে মুক্ত করেন তিনি। ভাষার মধ্যে তিনি ফিরিয়ে এনে ছিলেন এক বিদ্যুৎ তরঙ্গ। তাঁর সৃষ্টিতে শব্দ হয়ে উঠেছে উচ্ছ্বল ও প্রাণবন্ত।যুগ চেতনা অনেক সময় কবিকে গড়েপিটে নেয় যেমনটা হয়েছিল সুভাষ মুখোপাধ্যায়ের ক্ষেত্রে। বুদ্ধদেব বসু যথার্থই আরও পড়ুন…

ekbrinte duti kusum

“মোরা একই বৃন্তে দুটি কুসুম হিন্দু মুসলমান”: স্মরণে কাজী নজরুল ইসলাম

“আজও উজানের হাওয়া লাগেনি  মাঝির নৌকা পালে আজও সমাজে রক্ত ঝরে ধর্ম ধর্মের বেড়াজালে”। উনিশ শতকে বাংলার দরবারে যে সমস্ত সাহিত্যিক বা মনীষীরা শুধু বাংলায় নয় সমগ্র বিশ্বজুড়ে সাহিত্যের আলোড়ন সৃষ্টি করেছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম। তিনি শুনিয়ে গেছেন সাম্য মৈত্রীর বাণী। হিন্দু এবং মুসলিম আরও পড়ুন…