muhurtokotha

মুহূর্তকথা

১. একটি যৌনতাবাহী জাহাজলাশ নিয়ে চলে যাচ্ছেএকা একা দূরে, অনেকদূরে শোনা যায় ডোমেদের মুহুর্মুহু কান্না ২. বাতাসের পেট চিরে ঢুকে পড়ছে আকাশআকাশে কার নাভির গন্ধ? কিছুটা আঁশটে, কিছুটা কষাটে! ৩. বিষণ্ণ দেওয়াল কথা রাখছে নাতার অভিমান বাড়ির সঙ্গে বাড়ি, বাড়িতে নেইঘরের ভিতর পর, ভাঙা গানের সুর তুলছে ৪. মৃতদেহ সাজিয়ে আরও পড়ুন…

ontorbortirekha

অন্তর্বর্তীরেখা

১. কেন বেগুনি আলো-ই তুমি পছন্দ করবে! ভাবিকেন বেগুনি আলোয় প্রেতরাত্রি খুলবে বারবার ভাবি, আর অগ্নি গড়ায় কালো মেঘেভাবি, আর দাবার দু-প্রান্তে নামে ঝড়ভাবি, আর বজ্র জ্বলে যায় দুই বিপক্ষ শিবিরে নৌকো ডুবছে। ভাঙা পায়ে গড়িয়ে পড়ছে যত ঘোড়া ছকের দু-প্রান্তে দুই শব ঝুঁকে ঝুঁকেমৃত্যু তুলছে। ঝুঁকে ঝুঁকে মৃতের পাহাড় আরও পড়ুন…

patajhora

পাতাঝরা

পাতাঝরা ১ ক্রমাগত ব্যর্থতা লিখে যাই পাতাঝরার দিনরাত ভরে… বুঝেছি প্রতিটি মানুষ আসলে এক একটি নির্জন বন্দর একদিন নাব্যতা কমে এলে জাহাজ আসেনা আর। সব শব্দ, যা কিছু শুনেছি ঝরে পড়ে চেনা রক্তপাতে ক্ষতচিহ্ন বাড়তে বাড়তে একটা বিশাল আদিম শূন্যতা গহব্বরে মুখ ঢেকে যায়। শিল্পীর বিনির্মাণ হ’লে পট যায় ঘুরে আরও পড়ুন…

atmojobonik songlap

আত্মজৈবনিক সংলাপ

( কিশোর পর্ব ) ১ বাদাবন ভেঙে যে শৈশব উঠে এল মাঠের আলে কাদামাটিজল আর বিষধর কেউটের ফণা ফড়িংডানা নিয়ে স্থির হয়ে আছে ছোবল চোখে চোখ বিনিময় লাঠি ও বিষ দাঁতের আছাড় নিয়ে অবশেষে দংশনের আগে চকিত কৌশলে সরে গ্যাছে পা নীলবিষ যত আছে মৃত্তিকা শুষে নেয় হাতের লাঠির ঘা আরও পড়ুন…

sather nodi sater somudro

সাথের সমুদ্র, সাতের নদী

১ শিং উঁচিয়ে যে মোষটি আসছে তাকে মেঘ ভেবে ডেকে নাও পোড়া শরীর ভিজুক টুপ টাপ ঝরে পড়ার দিনে পিচ্ছিল পথ যদি টুকটুকে লাল হয়ে উঠতে পারে প্রতিবেশীর উঠোনে আর পড়ে থাকবে না কোনো ভাঙা ঝুনঝুনি ২ খেলার দিনে বৃষ্টি নামলে শহর কেন একা একা কাঁদে? উত্তরটি চেয়েছিলাম— একশো বছর আরও পড়ুন…