শোভন মণ্ডলের তিনটি কবিতা

শোভন মণ্ডল on

ভিত

এই যে নিথর পোড়া জমি
হাওয়া বয়, নেচে যায় অজস্র নর্তকী
কালো ছাই উড়ে যায় দিগন্তে

এখানে সবুজ বলে কিছু নেই
শুধু হারিয়ে যাওয়া স্বপ্ন, সত্যের অপলাপ
কবর থেকে উঠে আসে রূপকথার বালিহাঁস
পথ হারায়
তৃণভূমির ধিকি ধিকি আগুন এখনও কি জ্বলছে?

জানিনা, শুধু শুনেছি ঝড়ের শব্দ
খেলা করে বলরুমে
মহাপ্রলয় এসে নাড়িয়ে যায় দূর্গের মাটি
সত্যের সেই সব নরম ভিত

চোর

গোপন কক্ষ
অবারিত উচ্ছ্বাস নেই
নেই আলো, অনন্তের চেনা ডাক
চোখে চোখে ভরসার উষ্ণতা… সেও তো নিভে গেছে
ভিজে হাওয়ায়
শুধু খেদ আছে, আক্ষেপ আছে
আর আছে বন্ধ দরজার ওপারে বুকের আশ্রয়
নিটোল, খাঁটি
এই দ্যাখো, দুয়ারের পাড়ে এখনো দাঁড়িয়ে আমি
হাতে সিঁধকাঠি…

ভূখন্ড

নিচু ওয়াটের ম্রিয়মান আলো
ঘোলাটে বিছানা আর
সমুদ্রের মতো পড়ে থাকা নীলাভ বেডকভার

এখানে কোন নতুন গল্প নেই
ঢেউ নেই
ভেঙে যাওয়া মাস্তুল এখানেই মিলিয়ে যাচ্ছে বহুদূর
এসব শুধু শূন্যতার আবেশ
তাছাড়া কিছু নয় মনে হয়
অনন্ত জলরাশির মাঝখানে জেগে থাকে , জেগে থাকে
আমাদের দুজনের শরীর
বিচ্ছিন্ন ভূখন্ড হয়ে…



শোভন মণ্ডল

জন্ম- ২৫.১০.১৯৮০ শিক্ষাগত যোগ্যতা - বি এস সি ( কেমিস্ট্রি) পেশা- সরকারী কর্মচারী বাসস্থান - গড়িয়া, কলকাতাপ্রকাশিত কবিতা- দেশ, সানন্দা, কবিসম্মেলন, কবিতা পাক্ষিক, অনুষ্টুপ, অদ্বিতীয়া, গৃহশোভা, ক্লেদজকুসুম, একুশশতক, একদিন, বসুমতী, কৃত্তিবাস, কথাসাহিত্য, যুগশঙখ প্রভৃতি পত্রিকাবই- ২টি (চুম্বনে অচেনা ভাস্কর্য ও দরজার ওপারে...)সম্মান- আত্মদ্রোহ সাহিত্যকৃতি সম্মান কবিতা লেখার কারণ :- ছোটবেলায় বাবার কবিতা লেখার ডায়েরি খুঁজে পেয়ে প্রথম কবিতা লেখার ইচ্ছে জাগে। তারপর এক আত্মীয়ের কাছ থেকে পাওয়া উপহার জয় গোস্বামীর ‘ পাগলী, তোমার সঙ্গে' কবিকে দারুণ ভাবে প্রভাবিত করেছিল। সেই শুরু কবিতা লেখা। সেটা ছিল স্কুল জীবন। লেখা হতো শুধু কবির নিজের জন্য। কলেজ লাইফে এসে পাঠাতে থাকেন বিভিন্ন পত্রপত্রিকায়। প্রকাশিতও হতে থাকে। এখনও পর্যন্ত প্রকাশিত কবিতার সংখ্যা সহস্রাধিক।কবিতা ছাড়াও অণুগল্পে আগ্রহ রয়েছে।

0 Comments

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।