সন্তোষ চক্রবর্তী-র দু’টি কবিতা

সন্তোষ চক্রবর্তী on

অনুসঙ্গ

ও তে অনুসঙ্গ খুঁজো না আর
এবং ভীষণ অপ্রাসঙ্গিক এই আলাপ!
এর চে যদি মায়ের খর আঙুল
বুনো পাখির ডাক,ধানক্ষেত,পশ্চিম জানালা
এইসব আশ্রয় হতো!
তুমি সন্ধ্যার নিভে যাওয়া পিদিমের মতো
জ্বলছো এখন।এরপর নিভে যাবে
তুলসীতলা থেকে উঠে যাবো আমি আর মা!

নিয়তি

তারপর কিছুক্ষন স্থির হয়ে মৃত্যুর কথা ভাবলাম
মনে মনে বললাম আনন্দ!আনন্দ!আনন্দ!
প্রশান্তি এলো।কলমিলতা তুলে বাড়ি ফিরে এসে
বুনো ফুলে সাজালাম প্রিয় কবিকে।
দক্ষিণ জানালার দিকে চে থাকলে লোকে বলে
কি যে দেখে দিন রাত এক দৃশ্য।দেখি তো তোমাকে!
ফিরে যাও আলপথ ধরে দূর গাঁয়ে।সম্মোহিত করো রোজ।
কেননা কোন কোন দিন মধ্যরাত।চাঁদ ওঠে আকাশে
পাখিরা প্রহর গীতি গায়।আমি শুধু চুপ করে শুনি।ভয় হোয়!
আর এই যে থাকা না থাকার ব্যাবধান মৃত্যু ও শোকে
তাই তুমি!নিয়তি আড়াল করে রাখে তোমাকে আমাকে।



সন্তোষ চক্রবর্তী

বাড়ি বীরভূমের পলসা গ্রাম। কর্মসূত্রে কাটোয়া তে। প্রথম প্রকাশ কালের লন্ঠন, ২০১৪। এছাড়া কবিতা আশ্রম, লালমাটি, এবং চিলেকোঠা,অনন্যা, থার্ড আই, আলো পৃথিবী, শূন্য, কবি স্টেশন, ইত্যাদি পত্রিকায় নিয়মিত অনিয়মিত লেখা লেখি করেন। প্রথম বই ধুলোর শরীর,২০১৮।

0 Comments

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।