পঙ্কজ চক্রবর্তীর দু’টি কবিতা

পঙ্কজ চক্রবর্তী on

Pankaj_chakraborty

পরম্পরা

মাটির অক্ষর ফুটে ওঠে ঐ যোনিদেশে। তোমাকে পরার্থ
ভাবি। এই দেহ সমস্ত ধারণের অতীত। ঠগিনীর সাম্রাজ্য।
আমাকে নষ্ট করে তবে এই বানিজ্যবিস্তার। মহতের
মুখোমুখি ভোরের আলো কেঁপে ওঠে। একটি মানুষ
দিগন্তে তুলেছে ঘরবাড়ি। সব পথ ঢেকে আছে জলে ও
জঙ্গলে

লোকমুখে প্রচারিত দৈব পরম্পরা। মাটির অক্ষরগুলি,
নেহাতই আত্মসুখী, গর্ভবতী, তোমার দুহাতে নেভে জ্বলে…

নিজস্ব

কয়েকটি গাছের ফাঁকে তোমাকে দেখে নিই ব্যর্থ
রাজকুমার। যেকোনো সূর্যাস্তে তুমি ফোটাও অতিকায়
ফুল। চলার পথে তোমার আগন্তুক বুনো মায়া। এখন
ছায়ার পাশে এসে বসে নিজস্ব সংবাদদাতার ঘন চোখ।
বারোয়ারি শস্যের দিকে মানুষ চলেছে। অথচ তোমরা
জরির পোশাকে লেগে আছে গত সপ্তাহের ধুলো। এই
মর্মে মানুষ প্রতিদিন বাঁচে। আর তার মনের পাথর
দেবতার স্বরে কথা বলে।

শতাব্দী পেরিয়ে কয়েকটি গাছের ফাঁকে বর -বউ খেলা।
জানলা খুলে দেখা হল না আমার সন্তানের ঈষৎ যৌনতার
মেয়েলি স্বভাব।


ফেসবুক অ্যাকাউন্ট দিয়ে মন্তব্য করুন


পঙ্কজ চক্রবর্তী

জন্ম ১৯৭৭শ্যামনগরে। পেশা: অধ্যাপনা। প্রকাশিত কবিতার বই'বিষণ্ণ দূরের মাঠ', ' চার ফর্মার সামান্য জীবন', ' উদাসীন পাঠকের ঘর', ' লালার বিগ্রহ"। গদ্যের বই ' নিজের ছায়ার দিকে' এবং ' মধ্যমপুরুষের ঠোঁট'।

0 Comments

মন্তব্য করুন

Avatar placeholder

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।