অরিন চক্রবর্তী-এর তিনটি কবিতা

অরিন চক্রবর্তী on

Arin_chakraborty

ব্রহ্মনদী

তারপর এক সময় সঙ্গম থেমে আসে
বুক ভর্তি সিগারেটের ছাই
তুমি খুঁটে নিচ্ছ সমস্ত সম্পর্ক
যা আঁশের মতো লেগে আছে আমার চামড়ায়…

রক্তের ঢেউ নামে আমার মিনারে
তুমি বসে থাকো স্থবির হয়ে
সাঁতরে পার হয়ে যাচ্ছি
তোমার ব্রহ্মনদী…

মাটি

গতজন্মের ফসলের দাগ লেগে আছে
আমাদের উঠোনে

যে জমিতে একাত্তরের মাটি
সেখানে প্রেরণাহীন আঁচড় কাটছি

ভুলিয়ে দিচ্ছি ‘দ্যাশ’—
বাবার বুক একটি স্মৃতির কাঁটাতার

হাত বুলোতে গিয়ে রক্তাক্ত হয়ে যাই
দুটো দেশ, এক বুক…

প্রণয়

আমার শরীর জুড়ে কারা যেন রজনীগন্ধা ছড়িয়েছে
মাথার পাশে ধূপের গন্ধ

যা আমার সহ্য হয়নি কোনোদিন
এখন একান্ত সঙ্গী

সংসার নামের যা কিছু পাথরের মতন বয়েছি
সেখানকার শিল্পীরা খুঁজে চলেছে শেষ ব্যাঙ্ক-ব্যালেন্স

শেষ জলে ভেজা তুলো বরফ-বৃষ্টি হয়ে ঝরছে শরীরে
তুলসিপাতার মৃদু ঘ্রাণে উন্মাদ আমি…


ফেসবুক অ্যাকাউন্ট দিয়ে মন্তব্য করুন


অরিন চক্রবর্তী

উত্তর চব্বিশ পরগনার বারাসাতে থাকি। ক্লাস এইটে স্কুল জীবনের লাইব্রেরীর গন্ধ লেখার বিষয় হয়ে উঠলেও তিন বছর আগে 'টার্মিনাস' পত্রিকায় লেখা প্রকাশের মাধ্যমে কবিতার মহাসমুদ্রে ডুব দেওয়া শুরু, সেই থেকে ভেসে চলা এই অনন্ত পথে... 'কবিতানগর', 'চিন্তা', 'অর্বাচীন', 'রাঢ় বনতলি', 'শব্দযান' এছাড়াও আরোও পত্রিকায় লেখা প্রকাশ হয়েছে। লিটল ম্যাগাজিনে লিখতে ভালো লাগে। লাল মাটির পথ ভীষণ প্রিয়।

0 Comments

মন্তব্য করুন

Avatar placeholder

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।