সবুজ কথা

হরিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় on

জানলা খুলতেই দেখি
গাছের মতো দাঁড়িয়ে আছো তুমি
পাতায় হাওয়া লাগলে
দেহের ভাঁজ থেকে যাবতীয় সংখ্যা
হাওয়ায় হাওয়ায়
ভাসতে ভাসতে ভাসতে ভাসতে
কোথাও একটা বাঁকের মুখে নদী হয়ে গেল

যে গাছ গেয়ে দেবে পৃথিবীর গান
তারা সব খুব ভোরে উঠে হাঁটা দেবে
পথে দেখা হলে নদী
আরও একবার ভোর হয়ে যাবে চোখে চোখে

গাছ থেকে কেউ বুঝি পেরেছিল আলো
রাগ নয় হাসি হাসি মুখে দিয়ে গেছে সব
নিশাচর পাখির মতো যারা অন্ধকার ঘেঁটেছে খুব
তাদেরকেই আলো শুধু কথা দিয়ে যায়

গাছের ছায়ায় দাঁড়িয়ে
একটা দুটো তিনটে চারটে পাখি
কাগজের মতো গাছ থেকে উড়ে গেছে সাতসকালে
পৃথিবীকে ভালোবেসে পাখি হয়ে গেছে যারা
এরা তাদেরই বংশধর
গাছের ছায়ার মতো প্রেম এসে
গড়িয়ে যাবে জল হয়ে
পাখিরাও ঠোঁটে ঠোঁটে জল নিয়ে
ছড়িয়ে দেবে দূর দিগন্ত পর্যন্ত

এরপরই তোমার শরীর জুড়ে সবুজের সমারোহ
আমার বলে হাতে তুলে নিতে ভুলে গেছো
পৃথিবীর কাজে লেগে যাবে সব ——
আঁচলে তাই বাঁধা সবটুকু সবুজ ।



হরিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়

জন্ম ১৯৬৭ সালের ২ জানুয়ারি হুগলী জেলার ধনিয়াখালি গ্রামে। লেখালিখির শুরু খুব ছোটবেলা থেকেই। ছাপার অক্ষরে স্কুল ম্যাগাজিনে চিরাচরিত নিয়ম ভেঙেই প্রথম প্রকাশিত হয় "কেয়া" নামের একটি প্রেমের কবিতা। সাহিত্য নিয়েই পড়াশোনা। পেশায় গৃহশিক্ষক হলেও সাহিত্যই চব্বিশ ঘণ্টার ধ্যানজ্ঞান। মাসিক কৃত্তিবাস, একুশ শতক, ভাষাবন্ধন, প্রমা, কথাসাহিত্য প্রভৃতি পত্র পত্রিকায় লেখা প্রকাশিত হয়েছে। প্রকাশিত গ্রন্থ ৫টি। From the spring of light (পলাশ পালের শিল্পীজীবন), তুমি অনন্ত জলধি (কবিতা), বিমূর্ততার অনন্ত প্রবাহে (কবিতা সংক্রান্ত গদ্য), চার ছক্কায় সচিন (ছড়া), দু'এক পশলা মান্না (ছড়া) ।

0 Comments

মন্তব্য করুন

Avatar placeholder

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।