বৃষ্টিগন্ধাকে

সৌমাল্য গরাই on

বুকের ভিতর মধ্যদুপুর। প্রাচীন আলতামিরা গুহায় একলা গ্রীষ্মমানব সঙ্গীহীন মন নিয়ে খুঁজে চলেছে গোপন দুঃখ। বিরহ ভর্তি এক ঘর আঁধার, দেওয়ালে ঝুলে আছে মাকড়সার প্রাচীন আঠালো জালের মতো। জালের ভিতর আটকা পড়েছে দূর বসতির শরীর কীট..

মিসড হয়ে যাওয়া প্রতিটি ফোনকলে ঘুঙুরের শব্দ থাকে…

মনখারাপের দীঘল কোনো ঢেউ মেখে বসে আছে সে। স্নান করেনি দীর্ঘ সময় ধরে, ঠোঁটে লাবণ্যপ্রভা নিয়ে রোদ্দুর  পেতেছে তার ফ্রেস্কো। 

আয়ত চোখের জলীয় বাষ্প জমে এলো। যেন আকাশপাহাড় থেকে ঝর্ণার একটি ধারাস্রোত.. বর্ষাযাপনে তার শরীর থেকে টুপটাপ গড়িয়ে পড়ছে জল যেন বৃষ্টিচক্র
 যেন ঋতুরাগেমাটির বুকে নেচে উঠছে নিয়ম ভাঙার বয়স পরা এক বৃষ্টিবালিকা, 
ওই আসছে বৃষ্টির গন্ধ, বৃষ্টির নিঃশ্বাস, বৃষ্টির বিশ্বাস…



সৌমাল্য গরাই

সৌমাল্য গরাই

0 Comments

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।