“দূর সভা,নিকট জল
নিকট সভা,দূর জল…”

– খনার বচন

শান দেওয়া সব অস্ত্রই সে ভরে নিয়েছে মগজে
খোলা চুল তাই এত ধারালো
কথাদের ছিঁড়ে নিয়েছে বলে অন্ধকারও তেতে উঠল খুব
গাঢ়রঙ মাটিতে গিঁট খুলে পড়ে যাচ্ছে
গেরস্থালি,পুঁথি ও নক্ষত্র
লালচে বাদাম পাতার মত কাটা জিভ পিঠে করে
আজ রাতে ফিরে যাবে গ্রহণের চাঁদ
অথচ কি মিস্টি জলে ধুয়ে যাচ্ছে পৃথিবীর ছায়া অঞ্চল
ক্ষুদে পিঁপড়ে অলৌকিক মাংসটুকু কুরে খেয়ে গেলে
আচমকাই নিভে যাবে মহাকাশ
আগামী মৃত্যুর স্মৃতিতে আমরা দেখবো
প্রাচীন মুদ্রার মত রূপোলি জিভ
ঘিরে আছে অলোক মেঘের দল
পৌর্ণমাসী কোনও তিথিতে চন্দ্রসভা দেখে
গুনতে বসেছে মেধাবী মেয়ে
পিঁপড়েরা মুখে মুখে ছড়িয়ে দিচ্ছে আবহাওয়া সংবাদ
মৌসুমী সুবাতাস শোনো,মুখভর্তি ক্ষত ও ক্ষরণ নিয়ে
দখিনার কোন পথে যাবে বলো,বাদল ও বাণ?
ভরে যাবে আদিগন্ত এই অঘ্রাণ
অংকে ভুল নেই জেনেইতো এত ভয়
ভয়ের অস্থির ছুরি চারপাশে ঘোরে যত,
হেসে ওঠে রাত্রি আর রাত্রি লাল হয়
গ্ৰহণতো লেগেছে কবেই,
গণিতের শূন্য শুধু ঢেকে দেয় চাঁদের বলয়
পৃথিবীরও জিভ কাটা,উন্মাদ শিকারির কাছে
সুবচনী ঋতুকথা আজন্ম বোবা হয়ে আছে…



মণিদীপা বিশ্বাস কীর্তনিয়া

উত্তর চব্বিশ পরগনার বসিরহাটে জন্ম। ন‍্যাশনাল মেডিকেল কলেজ থেকে এম.বি.বি.এস.ডিগ্রি। বালুরঘাট জেলা হাসপাতালে কর্মরত। মূলত কবিতা লেখারই আকাঙ্ক্ষা। শখ বই পড়া। প্রকাশিত বই -'জোনাকির বাতিঘর', 'বিষাদ ও অহংকার'এবং 'দূরে বাজে'।

0 Comments

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।