উনিশে বসন্ত

মৃণালিনী ... on

শীতের রেষ কাটিয়ে বসন্ত হু হু করে ঢুকে পড়ে প্রেমিক মনে। প্রেমিকাহীন ভ্যালেন্টাইন ডে শষ্যহীন মাঠের মত আকাশে দীর্ঘ নিশ্বাস ছুঁড়ে দেয়। মহাপঞ্চমি তিথিতে বাসন্তি রঙে স্বর্গীয় অপ্সরাগণ ক্যাজুয়াল লুক ঝেরে, দেবীর মোহময় রূপে মাঠ- ময়দান, চওড়া- সরু অলিগলিতে।পেছনে গাড়ির হর্ণ ঘোষনা করে রিজার্ভ সাইট।

মিথের রীত জেনে তবুও অপেক্ষায় সাদা মন। অতীত কোন এক সময় বুকিং করে থাকলেও, টাইম ভ্যালিডিটি ফ্যাকাসে। স্মৃতির আবছা দাগ। সুযোগ হলে নতুন করে রঙিন হতেও তো পারে মনের দেওয়াল!ঈঙ্গিত ইশারায় বিরক্তি জেনেও নিশ্চিত ল্যান্ডিং বসন্তে রঙিন নেশাতুর চোখে। দু’ এক টুকরো কথায় কাজের কাজ সেরে সাদা ইনোভায় মিলিয়ে যাবে একটি সন্ধ্যে। বইমেলার ধূলোয়, সরস্বতীর সাদা চোখে নেমে আসবে বীণার সুর, ‘এই তো জীবন’। ধূলোরা একসময় লজ্জায় নানা রঙের আবিরের রঙে রঙিন ক্লাউন।

সব জেনেই এগিয়ে যেতে হয় বসন্তের ডাকে, হাতছানিতে অনিশ্চয়তার মুখোমুখি নিশ্চিত রোদ। তবুও শীতঘুম শেষে রোমান্টিক মন খোঁজে একটি চাতক; যে যুগের পর যুগ ধরে যেন তারই প্রতীক্ষায়। আশালতা শুকিয়ে নতুন, চিরহরিৎ। সময়ের হাত ধরে বসন্ত মূক কোকিলের পাখায়। এগিয়ে আসে জীবনের গ্রীষ্ম। বসন্তের রঙিন স্বপ্ন বাষ্পীয় হতে জল, ফিরে আসে চোখে আগামী বসন্তে চক্রাকারে।  এ জীবন তো এক অন্তঃসলিলা!

মৃণালিনী ...

লেখালেখি করতে ভালবাসেন। এছাড়া সিনেমা দেখতে ও বই পড়তে পছন্দ করেন। প্রকাশিত বই- ১.স্বপ্নের ধূসর রঙ ২.বাতিলের একটি দিন ৩. মনেও আছো ব্রহ্মান্ডেও আছো ৪. No Parking জোন ৫. জীবাশ্মের মুখ।

0 Comments

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।