শ্যামলা জাদুকর

কামরুজ্জামান কাজল on

সকাল হতে না হতেই পাবলিক লাইব্রেরি ক্যাফেটেরিয়াটি ছাত্রছাত্রীদের ভীড়ে উপচে পড়ে । প্রচন্ড শব্দ, হৈ হুল্লোড় সিরিয়াল এইসব কিছুর মধ্যেও একটা নাম বারবার উচ্চারিত হতে থাকে—মুরসালিন!
মুরসালিন পিপাসায় মরে গেলাম তাড়াতাড়ি পানি দে ত ভাই, একজন চেঁচিয়ে ডাকে । মুরসালিন এক কাপ চা, মুরসালিন পানি নাই, কোনার টেবিলে ডিমমালেট, অইখানে খিচুড়ি, মুরসালিন, কই রে এইদিকে আয়— গমগমে ক্যাফেটেরিয়ায় মুরসালিন ছাড়া কারোর চলেই না ।
দিনের এই ব্যস্ত সময়টাতে মুরসালিন খুব আনন্দে থাকে । কেন জানি নিজেকে খুব প্রয়োজনীয় মনে হয় ওর । চারপাশ থেকে যে-ই ডাকুক না কেন, দৌড়ে ছুটে যায় । ওর সদ্য কৈশরের জালিমাখা মুখটায় খেলতে থাকে কৌতুক । একটা অর্ডার নিয়ে এসে আবার ক্যাশের সামনে বাঁকা হয়ে দাঁড়ায় । মুরসালিনের লম্বা হাঁটুতে কি একটা অজানা রোগ আছে!
কিরে মুরসা দেখোছস, তর প্রিয় নীরা আফা আসতাছে—ক্যাশে বসা জাহাঙ্গীর ভাই মশকরা করে । মুরসালিন ওর শ্যামলা মুখ নিয়ে লজ্জা লজ্জা হাসে । অকারণেই মাথার কোঁকড়া চুলে হাত বুলাতে থাকে ।
কিরে শাউয়োর পো, তোরে না কইছি বাইরে দুইডা নাস্তা পাঠাইতে? কতসময় লাগে রে মান্দারির পু!—হাত উচিয়ে মুরসালিনের দিকে খেকিয়ে আসে পলিটিক্যাল দিপক দা । মুরসালিন ভয় পায় না, সোজা হয়ে দাঁড়ায় শুধু । মুখটা নিচু করে বলে— রুটি এখনো হয় নাই ভাই ।
নীরা আপা বান্ধবির সাথে এসে সামনের টেবিলটায় বসেই ডাকে— মুরসালিন, একপ্যাকেট বিস্কিট আর দুইটা চা । মুরসালিন চা নিয়ে কাছে যায় । আস্তে করে কাপটা টেবিলে রাখে । নীরা আপা ওর মাথায় হাত বুলিয়ে জিজ্ঞেস করে কেমন আছিস রে ছ্যাড়া! ব্যাগ থেকে একটা বিদেশি চকলেট বের করে দেয় । মুরসালিন মুখে উদাসীন ভাবটা ধরে রাখে । জোর করে ।
সন্ধ্যার পর ক্যাফেটেরিয়া বন্ধ হলে মুরসালিন পাশে ওর থাকার ঘরটায় ফেরে । পাঁচজনের এই ছোট্ট ঘরটায় ঢুকতেই মুরসালিনের দম বন্ধ লাগে । তাড়াতাড়ি গোসল দিয়ে খেয়ে প্রস্তুত হয় । কাজ আছে ।
শাহাবাগ মোড় । রাত তখন তিনটা । দীপক দা দাঁড়িয়ে বিড়ি খাচ্ছিলো। মুরসালিন একটা হুংকার দিতেই— দীপক দা দৌড়াতে থাকে । হাতের রামদাটা নিয়ে মুরসালিন পিছু ধাওয়া করে ।
একেতে রাত, ফাঁকা রাস্তা, আজিজ মার্কেট হয়ে কাঁটাবন দিয়ে দীপক দা দৌড়ে ওঠে নীলক্ষেতের মোড়ে । মুরসালিনও ওর লম্বা পা নিয়ে ধাওয়া করে চলেছে । মাঝে একবার ধরেই ফেলেছিলো মুরসালিন, একটা মাত্র কোপ দিতে পেরিছিলো, দীপকদার ডান হাতটা পড়ে আছে নীলক্ষেতের মোড়ে । দীপক দা কোন দিকে যাবে ঢাকেশ্বরী, টিএসসিসি, ফার্মগেট নাকি আজিমপুরে?
মুরসালিন খুব চাচ্ছিলো—আজিমপুরে না, কিন্তু দীপক দা’র ভাগ্য খারাপ! সেদিকেই ছুটতে থাকে সে । কি আর করা! আজিমপুরে নীরা আপার বাসার সামনেই দীপকদা পড়ে যায় । মুরসালিন একের পর একটা কোপ দিয়ে দীপকদার হাত, পা, শেষে ধড়টাও আলাদা করে ফেলে ।
রক্তে ভেসে যায় মুরসালিনের নীল শার্ট
রক্তে ভেসে যায় মুরসালিনের কোমল জালিমাখা মুখ
রক্তে ভেসে যায় মুরসালিনের কোকড়া চুলের পাটি
সামনের দোতলা বাড়ির জানলা থেকে নীরা আপা সব দেখে । টের পায় মুরসালিন । এই প্রথম মুরসালিনের বুকটা কেঁপে ওঠে । কাল সকালে কীভাবে মুখ দেখাবে নীরা আপার সামনে? মুরসালিন দৌড়াতে থাকে ।
দৌড়াতে দৌড়াতে মন্ত্র পড়ে মুরসালিন । সে জানে সে বিছানায় । শুধু মন্ত্রটা শেষ হলেই আবার ফিরে যাবে । কিন্তু একি, মন্ত্র ! কোথায় সে মন্ত্র পড়ছে? মুরসালিনের মুখে শুধু একটাই নাম!
কালো জাদুর এই শহর থেকে বের হবার জন্য মুরসালিন চিৎকার দিতে থাকে । জাহাঙ্গীর ভাইয়ের ঘুম ভেঙে গেলে হো হো করে হাসে জাহাঙ্গীর ভাই— কি রে আইজও তুই নীরা আপারে স্বপ্ন দেখতাছস?
তুই গেছস মুরসা!

কামরুজ্জামান কাজল

জন্মস্থান বাংলাদেশ, পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলা । প্রায় তিন বছরেরও অধিক সময় ধরে অণুগল্প নিয়ে কাজ করছেন । ফেসবুক গ্রুপ "অণুগল্প" থেকেই মূলত অণুগল্পের হাতেখড়ি । এছাড়াও দেশের বিখ্যাত সব সাহিত্যপত্রিকায় ও ওয়েবজিনে তার অণুগল্প নিয়মিত প্রকাশিত হচ্ছে । ইতোমধ্যেই প্রকাশিত হয়েছে দুটি একক অণুগল্প গ্রন্থ ১। দলছুট শালিকগণ (২০১৭) ২। আটপুকুরের ফুল (২০১৮) ২০১৬ সালে বের হয়েছে কাব্যগ্রন্থঃ শ্যাম পাহাড়ের আড়ালে । বর্তমানে লেখক "ত্রৈমাসিক অণুগল্প" পত্রিকার সম্পাদনা পর্ষদের সদস্য । অণুগল্প নিয়ে আছেন, অণুগল্প নিয়েই কাজ করে যেতে চান ।

0 Comments

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।