chaitri_bannerjee_guchho_kobita

চৈত্রী ব্যানার্জী-র গুচ্ছ কবিতা

আরোগ্য হুইসেল এমনি প্রত্যহ আষাঢ়ের অনাবৃষ্টি বিকেলে,মেয়েটা ছুটে আসে ছাতাহীন মাথাহীন ধড়।মধ্যবর্তী স্টেশনের আরোগ্য হুইসেল শুনেবৃষ্টিলোভাতুর।ডান করতলে;হাঁপ ধরা বাম বুক চেপে ধরে তার মনে হয়হৃদয় এক মুঠোফোন; গোরিলা গ্লাস ভেঙে গেলেদেখা যায় ছোঁয়া যায়একটু আধটু আঠালো জমিন।সেই থেকে সাবধানী মেয়েসাদা থানে মুড়েছে হৃদয়;যে বুকের ভার আছেতরঙ্গে ঈথার আছেআপাতত উপলব্ধ নয়। আরও পড়ুন…

akontho_dube_achi

আকণ্ঠ ডুবে আছি আমি

আকণ্ঠ ডুবে আছি আমি।টেবিলের নিচে জীর্ণ কাগজের মতোপড়ে আছে প্রিয়তমা চাঁদ,বিছানার নোংরা বালিশের মতোএক হাতে গুটিয়েছি প্রশস্ত অনন্ত আকাশ;ভাসিয়েছি শতদ্রর জলেকুচি কুচি কেটেকোকিলের সমস্ত ঠোঁট,কুহু কুহু ধ্বনি,স্বাধীন সঙ্গীত।মেঘেদের শ্বেতশুভ্র ভেলা, গাছ, পশু-পাখি,সবুজ প্রকৃতিছিঁড়ে যাওয়া জুতোর মতো ছুড়েছিঅতীতের নক্ষত্রের গায়ে। আমি সত্য অথবা মিথ্যারও প্রত্যাশী নই,আলো বা অন্ধকার সমানই চলৎশক্তিহীনআমার হৃদয়ের আরও পড়ুন…

mrityur jonyo ekti lekha

মৃত্যুর জন্য একটি লেখা

একটি উদ্দেশ্যহীন পথ কতদূর যেতে পারে এই প্রশ্নের সঠিক উত্তর যতদিন পাবো না ততদিন আমার এই অস্তিত্বের কোন মানে পাইনা। সেলুনটার সামনে জলের কল দিয়ে অফুরন্ত প্রবাহ। গ্রীষ্মের দিনে পিচের রাস্তায় আড়াআড়ি তাকালে একরকম মরীচিকা দেখতে পাওয়া যায়। সকলের মতো প্রতিদিন এই শরীর ও মনের বয়স বাড়েনি আমার। সেলুনের শাদা আরও পড়ুন…

ghoreferar nam valo thaka

ঘরে ফেরার নাম ভালো থাকা

শহরের আড্ডাগুলোর অসুখ করেছে। পরিত্যক্ত ফলের ঝুড়ির মতো পড়ে রয়েছে আড্ডার অতীত গায়ে মেখে মোড়গুলো। সেখানে কথারা বৃষ্টি হয়ে নামে না বহুদিন। এখন বাইরের জগৎ বলতে খোলা ছাদ। কর্মক্ষেত্র বলতে বেশ কিছু টবের গাছ। যত্নে যত্নে সেগুলো কবে যেন গান গাইতে শুরু করেছে। অল্প অল্প বৃষ্টি হচ্ছে। একটা ঘন সবুজ আরও পড়ুন…

ebong_tumi

এবং তুমি

( এক ) তোমারই তো মুখশত ভাঙনেওতুমি উঠে আসোতোমাকেই শুধুপড়ে ফেলি বারবারচোখের তারায়তারাদল যেন জ্বলেআকাশের মতোচেয়ে থাকো তুমিআলোকিত সব নামেঠোঁটের অংশ চোখে পড়লেইমনে পড়ে এক সেতুসারা দিন রাত চলে আনাগোনাআবিষ্কারের নেশায়চোখে এলে চুল শ্রাবণ ঘনায়মেঘে মেঘে সব কালোআকাশ ভেঙে বৃষ্টি নামলেদুজনেই জলে আলো । ( দুই ) এই দ্যাখো এই আরও পড়ুন…